ঈদ উপলক্ষে মাস্ক বিরোধী অভিযানে অভিনব উদ্যোগ জেলা প্রশাসনের, ফাইন এর বদলে মাক্স বিতরন

বিশালগড় (ত্রিপুরা) প্রতিনিধিঃ শনিবার সিপাহীজলা জেলার অতিরিক্ত জেলাশাসক উদয়ন সিংহা বিশালগড় মহকুমা শাসক জয়ন্ত ভট্টাচার্য জেলা ডিএসপি সজল শর্মা মহকুমা পুলিশ আধিকারিক সুদীপ্ত দাস সহ প্রশাসনের এক প্রতিনিধিদল মাস্ক বিরোধী অভিযানে নামেন। বিশালগড় মোটরস্ট্যান্ড এ দাড়িয়ে গাড়ি বাইক স্কুটি এমনকি পথচারী যাদের মুখে মাস্ক নেই তাদের গাড়ি থেকে নামিয়ে মাস্ক পরিয়ে দেন প্রশাসনের প্রতিনিধিরা। রাজ্য সরকারের ডাকা লকডাউন শুরু হয়েছে ৩১ জুলাই থেকে তা চলবে ৪ আগস্ট পর্যন্ত। রাজ্য সরকার বারবার আবেদন রাখছেন মাস্ক ব্যবহার করার এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার এবং সেনিটাইজার ব্যবহার করার কথা। প্রত্যেকদিন এই করোনা পজেটিভ এর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে রাজ্যে।। তার সঙ্গে হু হু করে বেড়ে চলছে সিপাহীজলা জেলাতেও। সেই কথা চিন্তা করে সিপাহীজলা জেলা প্রশাসনের এক প্রতিনিধিদল যাদের মুখে মাস্ক নেই ঈদ উপলক্ষে তাদেরকে মাস্ক পড়িয়ে সতর্ক করে দেন। অতিরিক্ত জেলাশাসক এবং বিশালগড় মহকুমা শাসক বিশালগড় সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিক এবং মহকুমা পুলিশ আধিকারিক এর প্রতিনিধি দল রাস্তায় বের হন এদিন। যে সমস্ত জনসাধারণ রাস্তা দিয়ে যাচ্ছেন যাদের মুখে মাস্ক নেই তাদেরকে গাড়ি, স্কুটি থেকে নামিয়ে মাস্ক পরিয়ে দিচ্ছেন। প্রশাসনের এই অভিনব উদ্যোগ লক্ষ্য করা যায় এদিন। বিশালগড় মোটরস্ট্যান্ড অনেকটা সময় দাঁড়িয়ে ছুটে যান গোলাঘাটির দিকে। বাইদ্যাদিঘী এলাকায় প্রশাসনের প্রতিনিধিদলের গাড়ি দেখতেই রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা জনগণ দৌড়াদৌড়ি শুরু করে দেয়। অতিরিক্ত জেলা আসক এবং বিশালগড় মহকুমা শাসক গাড়ি থেকে নেমে রাস্তার পাশে যারা কাজ করছেন মুখে মাস্ক নেই তাদেরকে মাস্ক পড়িয়ে দিলেন। গোলাঘাটি বাজারে গিয়ে দেখা গেল দোকানদারি করছেন কিন্তু মুখে মাস্ক নেই তাদেরকেও মাস্ক তুলে দিলেন। তাদের এই মাস্ক দেখে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা মহিলারা এসে অতিরিক্ত জেলা শাসকের কাছ থেকে মাস্ক নিয়ে যান। সাক্ষাতে অতিরিক্ত জেলা শাসক উদয়ন সিংহ বলেন এদিনের অভিযানে বেরিয়ে মূল লক্ষ্য ছিল খুশির ঈদে যাতে মাস্ক পরে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে খুশির ঈদ পালন করা হোক। এ উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে জনসাধারণের হাতে যাদের মুখে মাস্ক নেই তাদের হাতে মাস্ক তুলে দিয়ে বার্তা দেওয়াই উদ্দেশ্য। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মাস্ক পরে খুশির ঈদ পালন করার জন্য সিপাহীজলা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আবেদন করা হয়। তিনি সাক্ষাতে কথা গুলি বলেন।