জলজ চোখ

এবিএম সোহেল রশিদ
.
পুঞ্জীভূত মেঘ অশ্রু, ঘৃণার কষাঘাতে বহতা নদী
চোখের ভেতর নোনা স্রোতে ভাসে বিচ্ছেদের ছবি
বুকের হাপরে অবেগের কয়লা ধিকিধিকি জ্বলে
মেয়ে, মলিন ফুলে তাকিয়ে দেখে, কী করে ঢলে।
.
সব ব্যার্থতার উত্তর নেই, নেই কোনো সমাধান
প্রার্থনার সূর্য প্রতিদিন পালা করে নিচ্ছে প্রতিদান
গোমড়ামুখো চাঁদ ঋণী আলোয় জোছনা ছড়ায়
প্রতীক্ষায় থাকা চুমুগুলো অবহেলায় গড়ায়।
.
কাজলদানীতে বন্দী নদী, ছোঁবে আকাশ
দীর্ঘশ্বাসের সিন্দুকে কাতরাচ্ছে আহত বিশ্বাস
না বলা কথাগুলো চিঠি হয়ে উড়ে বেড়াবে
বুভুক্ষু বুকের উঠোনে বিষাদের বৃষ্টি ঝরাবে।
.
নতজানু হয়ে ক্ষমার হাতে ছুঁয়েছি প্রাপ্তির আসন
বিসর্জন দিয়েছি, উষ্ণ দেহকলার যাপিত শিহরণ
তবুও পাইনি ক্ষমা, দিনগুলোর সিঁড়ি গুনে গুনে
অতীত সুখগুলো শোকের সুতোয় রেখেছি বুনে।
.
এসো মৃগ-মৃগয়ার চঞ্চলতায় প্রান্তর সাজাই
অন্তর বীণায় মিলন সঙ্গীত, ধ্রুপদী সুরে বাজাই
ফিরে এসো, হয়ে যাই কথা বলা তোতা পাখি
অথৈ সমুদ্রের নীল চোখে, জলজ চোখ রাখি।

Leave a Comment