বরুড়া রাজামারায় জিয়া উদ্দিনের ঘরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে আগুন লাগানোর অভিযোগে

স্টাফ রিপোর্টারঃ কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার রাজামারায় জিয়া উদ্দিনের ঘরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে আগুন লাগানোর অভিযোগে করা হয়েছে। এ ঘটনায় রোববার বরুড়া থাকায় জিয়া উদ্দিনের স্ত্রী হাসনা বেগম একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ২৭ এপ্রিল সোমবার বরুড়া উপজেলার খোশবাস দঃ ইউনিয়নের রাজামারা গ্রামে গভীর রাতে প্রবাসী জিয়া উদ্দীনের বসত ঘর (টিন সেড বিল্ডিং) এ ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে পুড়ে নগদ দুই লাখ টাকা সহ, ৫ ভরি ওজনের ঘয়না, একটি নতুন সুজুকী মোটর সাইকেল, ফ্রিজ,আসবাব পত্র, ফার্নিসার, জমির দলিলপত্র ও ঘরের পাঁটটি রুমের সকল ধরনের মালা-মাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়, এতে প্রায় পঞ্চাশ লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন হয়। আগুন লাগার সংবাদ পেয়ে সাথে-সাথেই ফায়ার সার্ভিস সিভিল ডিফেন্স বরুড়া লিডার মোশারফ হোসেনের নেতৃত্বে একটি ইউনিট দ্রুত ঘটনাস্থলে যান, প্রায় ঘন্টা খানিক চেষ্টা চালিয়ে আগুন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রনে এনেছেন।, মোশারফ হোসেন জানান আগুনের সূত্রপত বৈদ্যুতিক সর্ট সার্কিট থেকে হওয়ার সম্ভাবনা। ফলে আগুন লাগার সাথে-সাথে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। প্রবাসী জিয়া উদ্দীনের স্ত্রী হাসনা বেগম জানান আমার ঘরের পিছনের থাই গ্লাস একটু ভাঙ্গা ছিলো, আর ঐ ভাঙ্গা দিয়েই আমার ঘরে আগুন দিয়েছে। আমার স্বামী দেশের বাহিরে থাকে তার উপার্জিত যা অায় করেছেন তা অাজ সব পুড়ে ছাই, আমাদের ঘরের মেইন সুইচ অফ করা থাকে। তিনি আরো জানান আগুন বৈদ্যুতিক সর্ট সার্কিট থেকে নয় আমি কুমিল্লার ভাড়া বাসায় থাকি। ঘটনার কয়েকদিন পুর্বে প্রতিবেশি সহিদ মিয়ার ছেলে রুবেল হোসেনের সাথে অামার ৪ বছরের শিশু বাচ্চার কানের দুল চিনিয়ে নিয়ে যাওয়ায় এবং এর পুর্বে মোবাইল চুরির ঘটনার দ্বন্দ্বে বাকবিতন্ডা হয়। এরা অামাকে বিভিন্ন হুমকি ধমকী প্রদান করেছিল। তাই এরা সুকৌশলে বাকবিতন্ডা এবং হুমকি ধমকির সুত্র থেকে অাগুন লাগানো হতে পারে বলে জানান। পরবর্তীতে এলাকার সাহেব সর্দাররা সালিশি বৈঠকের মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করেও ঘটনার সুষ্ঠু সমাধান হয়নি। পরে অভিযুক্ত সহিদ মিয়ার ছেলে রুবেল হোসেনের সাথে এ জিজ্ঞাসাবাদ করলে জানান অামি ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত নয়। অভিযোগটি মিথ্যা বানোয়াট ভিত্তি হিন। শেষে এলাকার জনসাধারণের মুখ থেকে জানা যায় এ ছেলে অতিতেও বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জরিত হয়ে জেল খেটেছিল।

Leave a Comment