বিশ্ব পরিবেশ দিবসে এবারের প্রতিপাদ্য-প্রকৃতির জন্য সময়

গোলজার আহমদ হেলাল

পরিবেশ অবক্ষয় ও ব্যাপক দূষণের ফলে বিশ্ব আজ বিপর্যস্ত। মানবজীবন, প্রাণীজগৎ জীববৈচিত্র্য হুমকীর সম্মুখীন। ১৯৭২ খ্রীস্টাব্দের জুনে সুইডেনের স্টকহোমে অনুষ্ঠিত মানব পরিবেশের। উপর ১ম জাতিসংঘের সম্মেলনে এ অবস্থার উপর আলোচনার সুত্রপাত ঘটে।এর পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্বব্যাপী জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ২৭ তম অধিবেশনে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয় যে প্রতি বছর ৫ জুন বিশ্ব পরিবেশ দিবস হিসেবে পালিত হবে।এই অনুভূতির ভিত্তিতেই গঠিত হয় UNEP(UNITED NATIONS ENVIRONMENT PROGRAM) বা জাতিসংঘ পরিবেশ কর্মসূচী। আজ একই চেতনায় বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালিত হচ্ছে পৃথিবীর সর্বত্র।

সূরা আল-বাকারার ২২ নং আয়াতে আল্লাহ বলেছেন,

যিনি তোমাদের জন্য যমীনকে করেছেন বিছানা, আসমানকে ছাদ এবং আসমান থেকে নাযিল করেছেন বৃষ্টি। অতঃপর তাঁর মাধ্যমে উৎপন্ন করেছেন ফল-ফলাদি, তোমাদের জন্য রিয্কস্বরূপ। সুতরাং তোমরা জেনে-বুঝে আল্লাহর জন্য সমকক্ষ নির্ধারণ করো না।

Who has made the earth a resting place for you,
And the sky as a canopy,
And sends down for you water (rain) from the sky,
and brought forth therewith fruits as a provision for you.
Then do not set up rivals unto Allah (in worship) while you know (that He alone has the right to be worshipped).

প্রতি বছর ৫ জুন বিশ্বব্যাপী পরিবেশ সচেতনতার লক্ষ্যে পালিত হয় দিবসটি। বিশ্ব পরিবেশ দিবস (World Environment Day) অফিসিয়াল নাম হলেও ইকো-দিবস হিসেবেও তার পরিচিতি রয়েছে। এটি বিশ্ব ধরিত্রী দিবসের (World Earth Day, 22 April) অনুগামী।

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ (UN General Assembly) ঊনিশ শ বাহাত্তরের (1972) এই দিনটিতেই শুরু করেছিল জাতিসংঘের মানবিক পরিবেশ কনফারেন্স (United Nations Conference on the Human Environment)। কনফারেন্স চলেছিল বারো দিন ব্যাপী (05-12 June, 1972)। তখন থেকেই দিবসটি পালিত হয়ে আসছে। দিবসটি প্রথম পালিত হয় ১৯৭৪ সালে। প্রতি বছরই দিবসটি আলাদা আলাদা প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে পালিত হয়। উত্তর গোলার্ধে দিবসটি বসন্তে, আর দক্ষিণ গোলার্ধে দিবসটি শরতে পালিত হয়।

২০২০ সালে বিশ্ব পরিবেশ দিবসের প্রতিপাদ্য হল ‘প্রকৃতির জন্য সময়’ (Time for Nature)। লক্ষ্য হলো পৃথিবী বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে মানুষের বিকাশের সময়োপযোগী রূপ কাঠামো গঠন।

COVID-19 মহামারী প্রাদুর্ভাবের কারণে ডিজিটাল মাধ্যমেই পালিত হবে এবারের বিশ্ব পরিবেশ দিবস। লকডাউন মানুষের জীবন বিধ্বস্ত করে দিয়েছে ঠিকই, তবে লকডাউন পরিবেশের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।

বিশ্বে পরিবেশ দূষণের সমস্যা ক্রমশ তীব্র আকার ধারণ করছে। মানুষ তাদের সুবিধার জন্য সংস্থান তৈরি করেছে, আর তার জন্য ধ্বংস করেছে পরিবেশকে। সৃষ্ট সমস্যাগুলির সঙ্গে তাল মিলিয়ে ভারসাম্য সৃষ্টির লক্ষ্যে পরিবেশ সম্পর্কে সচেতন করাই দিবসটির মূল শ্লোগান।

লেখকঃসাংবাদিক,
সহ-সভাপতি,সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাব। নির্বাহী সম্পাদক-দৈনিক আলোকিত সিলেট।

Leave a Comment