বুড়িচংয়ে কালবৈশাখী ঝড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি! আহত অন্তত ১০

আব্দুল্লাহ আল মামুন ভূঁঞা, বুড়িচং (কুমিল্লা) প্রতিনিধিঃ
করোনা আতঙ্কের মধ্যে হানা দিলো কালবৈশাখী ঝড়।
বুধবার বিকেলে হঠাৎ কালবৈশাখী ঝড়ে কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে অন্তত ৬০টি ঘর ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।এছাড়া ঝড়ে গাছ-পালা,বিদুতের খুটি ভেঙ্গে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে।
সরেজমিনে বুড়িচং উপজেলার ১নং রাজাপুর ইউনিয়নের বারেশ্বর গ্রামে দেখা যায়,তানভীর,মামুন ভূঁইয়া(বাবু),রাকিব খন্দকার এর সহ ৬টি ঘরের উপর গাছ উপড়ে পরে আছে।টিনের চালা ঝড়ে উড়ে গেছে।এই গ্রামের খতিগ্রস্থ ঘরের মধ্যে থাকা লুৎফা বেগম,তানভীর ভূঁইয়া,বাবু ভূঁইয়া,রাকিব খন্দকার আহত হয়।বারেশ্বর গ্রামের বর্তমান মেম্বার মোঃমহসিন খতিগ্রস্থদের ও খতিগ্রস্থ বাড়ি ঘর সরজমিনে দেখেন।তিনি খতিগ্রস্থদের পাশে আছে এবং তার সাধ্য মতো সার্বিক সহযোগিতা করবে বলেও আশ্বাস দেন মহসিন মেম্বার।
এছাড়া নিমসার সবজী বাজারের হান্নান মিয়া,জালাল মিয়া,মাসুমের সহ মোট ২৫টি আড়ৎতের টিনের চালা উড়ে গেছে।
অন্যদিকে উপজেলার ষোলনল ইউনিয়নের ষোলনল মধ্যপাড়া এলাকার শিরু মিয়ার সহ ৩টি বশত ঘরের উপর গাছ পরে ভেঙ্গে গেছে।
বাকশীমূল ইউনিয়নের বলারমাপুর গ্রামের কবির হোসেন এর একটি মোরগীর খামার ভেঙ্গে দেড় হাজার মুরগীসহ পুকুরের পানিতে পাড়ে যায়।এতে প্রায় ১০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়।
কালবৈশাখী ঝড়ের ফলে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুতের খুটি ভেঙ্গে বিদুৎ সর্বরাহ বন্ধ রয়েছে।
বুড়িচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইমরুল হাসান মুক্তির লড়াই পত্রিকার প্রতিনিধিকে জানান,গত রোববার ও বুধবার বিকেলে বয়ে যাওয়া কাল বৈশাখী ঝড়ে বুড়িচং উপজেলার বেশ কয়েটি ইউনিয়নের ঘর-বাড়ী,গাছ-পালা ও বিদ্যুৎ লাইনের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।দ্রুত সময়ের মধ্যে ক্ষতির পরিমান নির্ধারণ করে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে সহায়তা প্রদান করা হবে।

Leave a Comment